Business Keeper Inventory Software

অনেকেই তো ব্যাবসা করে! আপনার কি ধরনের বিজনেস?? শো রুম? ডিস্ট্রিবিউশন?? সুপারশপ?? গোডাউন একটা কিন্তু শো রুম/দোকান একাধিক?

সবাই তো ব্যাবসা করে! কিন্তু সবাই কি লাভবান?? আপনার ব্যাবসার ভবিষ্যৎ কি?
আপনার ব্যাবসার বিশ্লেষণ / লাভ ক্ষতির সঠিক হিসাব রাখছেন কি?

বিগত ছয় মাস বা এক বছরের ডাটা আছে কি আপনার কাছে? আপনার কম্পিউটারটি যদি চুরি হয় বা নস্ট হয়ে যায় তাহলে কি ফিরে পাবেন আপনার মূল্যবান তথ্য?

এসকল সমস্যার সমাধান নিয়েই আমরা আপনার কাছে এসেছি।

প্রযুক্তির অগ্রযাত্রায় সবকিছুতেই এখন ডিজিটালের ছোয়া। অন্যান্য কাজের মতোই হিসাব নিকাশ করার সনাতন পদ্ধতি বাতিল হয়ে আধুনিকতা এসেছে। ভারি ভারি খাতা, হিসাব বহির ভার এখন আর একজন হিসাবরক্ষণকারীকে বয়ে বেড়ানো লাগে না। সফটওয়্যার আর কিবোর্ড মাউসের মাধ্যমেই এখন বড় বড় হিসাব মিলছে মুহুর্তেই। নেটে সার্চ দিলে আপনি বেশ কিছু সফটওয়্যার পেয়ে যাবেন। কিন্তু তা হতে সত্যিকার কাজের কোন গুলো তা নির্ধারন করা কঠিন।

অ্যাকাউন্টিং সফটওয়্যার নিবার্চনের সময় ফ্রী গুলো পরিহার করুন, কারন এতে প্রফেশনাল কোন সলিউশন পাবেন না। এক্ষেত্রে আপনাকে স্বস্তি প্রদানের মত অসাধারণ একটি সফটওয়্যার Business Keeper ।  স্টক, একাউন্টিং পয়েন্ট অফ সেলস, মাল্টিইউজার ফিচার সহ বেশ জনপ্রিয় একটা একাউন্টিং প্যাকেজ রয়েছে এই সফটওয়্যারটিতে। এর সাথে পয়েন্ট অফ সেলস এর কাজ করে। মাল্টি ল্যাঙ্গুয়েজ, মাল্টি কারেন্সির সাপোর্ট করে। ফলে খুব সহজেই আপনার প্রতিষ্ঠানের হিসাব নিকাশ কে কম্পিউটারাইজ করে নিতে পারেন।

যেসব ফিচারগুলো রয়েছে :
• প্রতিটি লেনদেনে জন্য ভাউচার
• ট্রাইল ব্যালেন্স
• ইনভেন্টরি
• পয়েন্ট অফ সেলস
• ডে বুক
• ডাটা ইমপোর্ট এবং ব্যাকআপ
• নেটওয়ার্ক সাপোর্ট
বারকোড তৈরি করতে পারবেন।

• একাধিক ইউজারসহ প্রয়োজনীয় সব ফিচার। যেগুলো সহজেই কাস্টোমাইজ করে নিজের প্রয়োজনমতো ব্যবহার করা যায়।
এই সফটওয়্যারটির আরেকটি বড় ধরনের সুবিধা হলো সফটওয়্যারটি একসাথে একাধিক স্থান থেকে কোনো প্রকার ইনস্টলেশন ছাড়াই ব্যবহার করা যায়।

অনেকেই ভাবছেন, আমি তো অ্যাকাউন্টিং জানি না, আমি কি কাজ পারবো? তাদের জন্য বলছি, আগ্রহ থাকলে অবশ্যই পারবেন, তার জন্য আপনাকে অ্যাকাউন্টিং খুব একটা জানতে হবে না। আপনি কি ধরনের হিসাব করবেন তার একটি তালিকা দিলাম আপনাদের সুবিধার জন্য—
, যে প্রতিষ্ঠানের জন্য এটি ব্যবহার করবেন তার ধরন কি তা জেনে নিই।

১। পন্য ক্রয়
২। স্টক করা
৩। বিক্রয়
৪। ক্রয় এবং বিক্রয় ফেরত
৫। বিভিন্ন ধরনের খরচ

আবার ধরি আপনার একটি কম্পিউটার প্রতিষ্ঠান আছে , যেখানে নিম্নের কাজ গুলি হয়ে থাকেঃ
১। পন্য ক্রয়
২। স্টক
৩। প্রাইস লিস্ট ( খুচরা , পাইকারী, স্পেশাল অফার)
৪। বিক্রয়
৫। সার্ভিসিং
৬। ট্রেনিং
৭। বিভিন্ন ধরনের খরচ

“বিক্রয় প্রতিস্ঠানের সফটওয়্যার” অবাক করা সুযোগ….!!!!
বাংলাদেশকে ডিজিটাল যুগে আরো এক ধাপ এগিয়ে নিতে Akand info Technologies সকল ধরনের বিক্রয় প্রতিস্ঠানের জন্যে তৈরী করেছে বিশেষ “Point Of Sale (POS)” Software।
আমরা আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত সফটওয়্যারটি শুধু সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই এত কম মুল্যে প্রদান করছি। এই সফটওয়্যারটিতে বিক্রয় মেমো, ক্রয় মেমো, স্টকের তথ্য, পন্যের তথ্য, ক্রেতাদের তথ্য ইত্যাদী নানান কাজের সুবিধা আছে। বিক্রেতাগন অতি সহজে এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করতে পারবেন। আধুনিক টেকনোলজি ও উন্নত মানের কারনে এখন বাংলাদেশে এই সফটওয়্যার এর প্রচুর চাহিদা। প্রতি মাসেই অনেক নতুন নতুন ব্যবহারকারী এই সফটওয়্যার টি ব্যবহার করছেন। বাংলাদেশের যেকোন স্থান থেকে আমাদের নাম্বারে (0194405669) ফোন করলে, দ্রুত সময়ের মধ্যে আপনার জন্যে সফটওয়্যার ডেলিভারি দিয়ে থাকে।

অনলইনে Demo দেখতে চাইলে ফোন করুন : ০১৯৪৫ ৪০৫৬৬৯

নতুন বা পুরাতন উদ্যোক্তাদের জন্য কিস্তির ব্যাবস্থা আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Copyright. All rights reserved. | Powered by Themeglory